Breaking News

এক নজরে দেখে নিন অস্ট্রেলিয়া সাথে বাংলাদেশের টি-টুয়েন্টির হিসাব-নিকাশ।

শ্রীলংকা, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবা জিম্বাবুয়ে! এই দলগুলির সাথে প্রতিবছরই কয়েকটি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশে। কিন্তু ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া সাথে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে দেখা যায় না বাংলাদেশকে। যার প্রমাণ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলাদেশের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসেছে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল। এই প্রথম বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কোনো দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেনি।

সর্বশেষ ২০১৭ সালের দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে সফরে এসেছিল অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। এখন পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চারবার মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ।

সেই চারটি ম্যাচে হয়েছে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে ভারতের ২০১৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডে এবং টেস্ট ম্যাচ জয়লাভ করলেও এখন পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি ম্যাচ জয়লাভ করতে পারেনি বাংলাদেশ। দুই দলের মধ্যকার প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় ২০০৭ সালে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে। কেপ টাউনে বাংলাদেশকে ৯ উইকেটে উড়িয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া।

টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৩ রান সংগ্রহ করে মোহাম্মদ আশরাফুলের বাংলাদেশ। জবাবে ১৩.৫ ওভারে মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয় অস্ট্রেলিয়া।

এরপর তিন বছর পর ২০১০ সালে আবারও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়া। এই ম্যাচে জয়ের একটি সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে মাশরাফি বিন মুর্তজা, সাকিব আল হাসান এবং আব্দুর রাজ্জাকের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৫৭ রানের মধ্যে ৫ উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ।

শেষের দিকে মাইক হাসির বিধ্বংসী ৪৭ রানের সুবাদে ১৪১ রান সংগ্রহ করে অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৫ রানের মধ্যেই টপ অর্ডারের ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ২৭ রানে ম্যাচটি হারতে হয় বাংলাদেশকে।

দুই দলের মধ্যকার তৃতীয় দেখা হয় মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। এই ম্যাচে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক হয় বর্তমান বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদের। ২০১৪ গ্রুপ পর্বের ম্যাচে আগে ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬৩ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

এই ম্যাচে ৬৬ রান করেছিলেন সাকিব আল হাসান এবং ৪৭ রান করেছিলেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু ডেভিড ওয়ার্নার এবং অ্যারন ফিঞ্চের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ৭ উইকেটে জয় লাভ করে অস্ট্রেলিয়া।

দুই দলের মধ্যকার শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে ২০১৬ ভারতে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। ব্যাঙ্গালুরুতে ওই ম্যাচে আগে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়াকে ১৫৭ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ। এই ম্যাচে ৪৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তবে উসমান খাজার ৫৮ রানে ৯ বল আগে তিন উইকেট হাতে রেখে জয় তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া।

About sb

Check Also

জাইগা না পাওয়া জয়ের নায়ক বেঙ্কটেশ আয়ারের সম্পর্কে যা বললেন মর্গ্যান

আইপিএল-এ প্রথম পর্বের সাতটি ম্যাচে দলে জায়গা হয়নি। দ্বিতীয় পর্বে প্রথম ম্যাচে বিরাট কোহলীর রয়্যাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *