বাংলাদেশের যে ১জন ক্রিকেটারকে ১টি উপহার দিতে চাইলেন ডেভিড মিলার

বাংলাদেশের যে ১জন ক্রিকেটারকে ১টি উপহার দিতে চাইলেন ডেভিড মিলার

২০১৭ সালের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরটি ভুলে থাকতেই চাইবেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। সেবার টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হতে হয়েছিল টাইগারদের।

blank
blank
blank
blank
blank
blank
blank

সেই সিরিজের স্মৃতি চাইলেও ভুলতে পারবেন না মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে তাকেই এক ওভারে ৫ ছক্কা মেরেছিলেন ডেভিড মিলার। তাঁর ৩৬ বলে অপরাজিত ১০১ রানের অপরাজিত ইনিংসেই বড় পুঁজি পেয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা।

পরে সেই রান তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশ ম্যাচ হেরেছিল ৮৩ রানের বিশাল ব্যবধানে। ক্রিকফ্রেঞ্জির ঈদ স্পেশাল আড্ডায় ডেভিড মিলারের কথায় আবারও উঠে এসেছে সেই ম্যাচ। এই মারকুটে ব্যাটসম্যান জানিয়েছেন, তিনি সেদিন সাইফউদ্দিনকে আলাদা করে টার্গেট করেননি।

মিলারের ভাষ্য, ‘পেছনে ফিরে তাকালে আমি অবশ্যই সাইফউদ্দিনকে টার্গেট করতাম, তখন আসলে প্রথম চার বলে ছয় হয় এবং সেই সময় ১৯ তম ওভার চলছিল। তখন ডেথ ওভার চলছিল তাই আমাকে ওভাবেই খেলতে হতো। লক্ষ্য ছিল ১৯ এবং ২০ ওভারে বোলারদের ওপর চড়াও হবো।’

blank
blank
blank
blank
blank
blank
blank

‘প্রথম বল ছোয় হলো, দ্বিতীয় বল ও ছয় হলো, সত্যি বলতে প্রথম ৪ টা বল ছয় হওয়ার মতই ছিল। ৫ম বলতা স্লো বাউন্সার ছিল তাই আমাকে লেট শট খেলতে হয়েছিল। সত্যি বলতে আমি সাইফউদ্দিনকে টার্গেট করিনি। যেহেতু ১৯ ওভার ছিল তাই ওভাবেই আমাকে খেলতে হতো।’

সেই ম্যাচ শেষে মিলারের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন সাইফউদ্দিন এবং শুভেচ্ছাও জানিয়েছিলেন তিনি। দুঃসহ স্মৃতির মাঝেই মিলারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন বাংলাদেশের এই পেসার।

সেদিন মিলারের কাছে একটি আবদারও জানিয়েছিলেন সাইফউদ্দিন। মিলারের কাছে ৫ ছক্কার ব্যাটটি চেয়েছিলেন তিনি। যদিও টিম মিটিংয়ের কারণে সেদিন দ্রুতই চলে যেতে হয়েছিল মিলারকে। সেই ব্যাট নিয়ে এখনও অপেক্ষায় আছেন এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান।

এ প্রসঙ্গে মিলার বলেন, ‘আসলে সাইফউদ্দিনকে আমার একটা উপহার দেয়া এখনো বাকি। ম্যাচ শেষে সাইফ আমাকে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিল এবং আমার কাছে আমার ব্যাট উপহার ছেয়েছিল। আমি তাঁকে একটু অপেক্ষা করতে বলে দ্রুত ড্রেসিং রুমে চলে গিয়েছিলাম টিম মিটিংয়ে অংশ নিতে।’

blank
blank
blank
blank
blank
blank
blank

‘আমি তাঁকে ব্যাটটা দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু হলো না। মিটিং শেষে দেখলাম দুই দল আলাদা হয়ে গেছে এবং বাংলাদেশ দল ততক্ষণে এয়ারপোর্টের উদ্দেশ্যে মাঠ ছেড়েছে। তবে আমি বিশ্বাস করি আবার সুযোগ আসবে এবং আমি তাঁকে সেই ব্যাট উপহার দিতে পারবো। এটা আমার জন্য এক দারুণ স্মৃতি।’

সেই সাইফউদ্দিন এখন আরও পরিণত। বছর দুয়েক পরেই ২০১৯ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ বিপক্ষে দারুণ পারফর্ম করে আবার নায়ক বনে যান সাইফউদ্দিন। অনেকেই সেই ম্যাচকে আখ্যা দেন সাইফউদ্দিনের প্রতিশোধ পর্ব হিসেবে।

blank
blank
blank
blank
blank
blank
blank

About অজয়

blank

Check Also

নিজেকে করোনার থেকেও শক্তিশালী মনেকরা সবচেয়ে শক্তিশালী পুরুষের জিবনের কাল হয়ে দাড়ালো করোনা

করোনার টিকা সংক্রমণ ও মৃত্যুকে একেবারে শূন্যের কোটায় নিয়ে আসতে পারবে না এখনই, তবে বাঁচার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.